বুড়িচংয়ে তাপদাহে বাড়ছে ডায়রিয়াসহ বিভিন্ন রোগব্যাধি

লেখক: স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ১ মাস আগে

Spread the love

বুড়িচংয়ে চলতি সপ্তাহজুড়ে তাপদাহে বেড়েছে রোগব্যাধি। এতে ডায়রিয়া, বমি, জ্বর, গলা ব্যথাসহ নানা উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হচ্ছেন নানা বয়সী মানুষ। শিশু ও বৃদ্ধদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকে বলে তারা এসব রোগে বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকরা বলছেন, গরম বৃদ্ধি পাওয়ায় নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন মানুষ। চিকিৎসকরা জানান, গরমের এ সময়টাতে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে। খাদ্য তালিকায় থাকা চাই সুষম খাবারসহ পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন ‘সি’ জাতীয় খাবার ও রসালো ফল। এ সময় সুস্থ থাকতে খেতে হবে মৌসুমি ফল, শাকসবজি ও প্রচুর পরিমাণে পানি। এতে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। সরেজমিনে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বহির্বিভাগ ও জরুরি বিভাগসহ বেসরকারি হাসপাতাল এবং রোগ নিরাময় কেন্দ্র ঘুরে দেখা গেছে, চলতি সপ্তাহজুড়ে হঠাৎ গরমে নানা রোগ নিয়ে চিকিৎসা নিতে আসছেন নানা বয়সী মানুষ। এসব রোগের মধ্যে রয়েছে ডায়রিয়া, পানিশূন্যতা, জ্বর, ঠান্ডা, কাশি, নিউমোনিয়া, বমি, পেটব্যথা, গলাব্যথা ও এলার্জিজনিত রোগ সহ নানা ধরনের সমস্যা । অধিকাংশ রোগীকেই চিকিৎসা দিয়ে বাড়িতে পাঠানো হচ্ছে। খুব কমসংখ্যক রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের রাজাপুর ইউনিয়নের ধনু মিয়া বলেন, গরমে জমিতে ধান কাটার সময় বমি শুরু হয়, সঙ্গে পেটব্যথা। পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে ভর্তি হই। এখন ভালো আছি। চিকিৎসা নিতে আসা উপজেলার বাকশীমূল ইউনিয়নের বাসিন্দা ফখরুল ইসলাম বলেন, আমার ৭ বছরের শিশু সাইদ গত কয়দিন ধরে পাতলা পায়খানাজনিত সমস্যায় ভুগছিল। বাড়ির পাশের ঔষধ দোকান থেকে ঔষধ নিয়ে খাইযেছিলাম। তেমন কোনো উন্নতি না দেখে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এসেছি। ৪ বছর বয়সী মায়া আক্তার এর বাড়ি উপজেলার ইছাপুরা গ্রামে। শিশুটির মা শিরিন শারমিন জানান, মায়া গত কয়েক দিন ধরে হালকা জ্বর ছিল। এরইমধ্যে তার ডায়রিয়া দেখা দিয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা.মীর হোসেন মিঠু বলেন, এই গরমে অতিরিক্ত ঘামের কারণে শিশু ও বয়স্কদের পাশাপাশি সকল বয়সী মানুষের ঠান্ডা, সর্দি-কাশি, জ্বর হতে পারে। এ ছাডা পেট খারাপ, কলেরা, আমাশয়, ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া হওয়ার আশঙ্কা থাকে। অনেক সময় অতিরিক্ত গরমের তীব্রতায় হিটস্ট্রোক হতে পারে। এক্ষেত্রে একটু পর পর পানি ও ওরস্যালাইন খাওয়া পরামর্শ দেন। প্রস্রাবের রঙ ও পরিমাণের দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। প্রস্রাবের রঙ বদলের পাশাপাশি পরিমাণ কমে গেলে পানিসহ তরলজাতীয় খাবারের পরিমাণ বাড়াতে পরামর্শ দেন।

  • বুড়িচং