কুমিল্লায় বজ্রপাতে দুইজন নিহত

লেখক: স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ১ মাস আগে

Spread the love

কুমিল্লায় বজ্রপাতে আনোয়ারুল হক (২৮) নামে এক মাটি কাটার শ্রমিক ও রিমন (২০) নামে এক কলেজ শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। রবিবার (১৯ মে) দুপুরে ও বিকেলে জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার খিরনশাল এবং সদর উপজেলার কোটবাড়ি এলাকায় বজ্রাঘাতে এ দুইজনের মৃত্যু হয়।
নিহত আনোয়ারুল হক লালমনিরহাটের আদিতমারি উপজেলার বারগরিয়া গ্রামের আজিজুর রহমানের ছেলে এবং রিমন মনোহরগঞ্জ উপজেলার ফেনুয়া গ্রামের বাবুল মিয়ার ছেলে। কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রবিবার দুপুরে চৌদ্দগ্রাম উপজেলার মুন্সীরহাট ইউনিয়নের খিরনশাল-লনিশ্বর মাঠে বজ্রপাতে শ্রমিক আনোয়ারের মৃত্যু হয়। এসময় মুজিবুর নামে আরেক শ্রমিক আহত হন।
আহত মজিবুর রহমান বলেন, ‘লনিশ্বর গ্রামের মাওলানা দেলোয়ার হোসেনের কৃষি জমিতে রবিবার সকাল থেকে মাটি কাটার কাজ করছিলাম আমরা ১০-১২ শ্রমিক। দুপুরে হঠাৎ আকাশ মেঘাচ্ছন্ন হয়ে থেমে থেমে বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে। বজ্রপাত আনোয়ারুল হকসহ আমাদের কয়েকজনের ওপর পড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই আনোয়ারুলের মৃত্যু হয়। আমাদের চিৎকারে স্থানীয়রা উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে।’
চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আবুল হাসেম বলেন, বজ্রপাতের ঘটনায় দুজনকে হাসপাতালে আনা হয়েছে। এর মধ্যে আনোয়ারুল হক নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে এবং মজিবুর রহমান নামের আরেক জনকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।
অপরদিকে রবিবার বিকালে কুমিল্লার কোটবাড়ি এলাকায় মাঠে খেলতে গিয়ে বজ্রপাতে নিহত হয় পলিটেকনিকেল কলেজের প্রথম বর্ষ শিক্ষার্থী রিমন।
নিহত রিমনের প্রতিবেশী ও স্বজন মহিউদ্দিন জানান, বিকালে কোটবাড়ি মাঠে খেলতে যায় রিমন। এ সময়ে বজ্রপাত হলে সে মাঠে লুটিয়ে পড়ে। গুরুতর আহত অবস্থায় রিমনকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে, সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।
কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এর সাথে কথা বললে -তিনি জানান যে ঘটনাটি আমার মাধ্যমে অবগগত হয়েছেন।খোজ খবর নিয়ে নিশ্চিত করবেন।
এ বিষয়ে নিহত শিক্ষার্থী রিমনের চাচা নোমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান-রিমনের মৃত্যুর খবর আমাদের পুরো পরিবারের মাঝে শোকের ছায়া নেমে আসে। এটা আমাদের পরিবারের জন্য একটা অসহনীয় আঘাত।আল্লাহ যেন আমার ভাতিজাকে জান্নাত বাসী করেন।
পারিবারিক সূত্রে আর জানা যায়, রিমনের জানাযার নামাজ সোমবার সকাল ৯টায় গ্রামের বাড়ির পারিবারিক কবরস্থানে দাপন করা হয় ।

  • কুমিল্লা